রক্ত ঝর্ণা

আমরা অনেকেই হয়তো ছোট বড় অনেক ঝর্ণা দেখেছি। কিন্তু আপনি কি জানেন যে পৃথিবীতে এমন একটি ঝর্ণা রয়েছে যার মধ্যে দিয়ে পানি নয় বরং রক্ত বয়ে চলে। রক্তের প্রবাহমান ধারা ! ব্যাপারটা ভাবতেই কেমন জানি বিস্ময় লাগে।আরো ভাবুন, বিপুল পরিমাণ জায়গা জুড়ে শ্বেত বরফে মোড়ানো পাহাড় থেকে চুইয়ে চুইয়ে লাল রক্ত ঝরছে পানির মতো করে। আরো অবাক করা ব্যাপার হলো কেনোই বা এন্টারটিকার মতো যায়গায় যেখানে তাপমাত্রা শূন্যের ও নিচে সেখানে লাল রক্তের মতো পানি প্রবাহমান! কেনোই বা সেগুলো বরফ হচ্ছে না !! তাই তো যুগ যুগ ধরে গুঞ্জন চলে আসছে এন্টারটিকার এ রহস্য নিয়ে । তো চলুন জেনে নেই এই ব্লাড ফলস বা রক্ত ঝর্না ইতিহাস।

রক্ত ঝর্ণা মূলত আয়রন অক্সাইড এর লবনাক্ত পানির উপত্যকা, যেটি টমাস গ্লেসিয়া থেকে প্রবাহিত হয়। এটি পূর্ব এন্টারটিকায় অবস্থিত। আনুমানিক ২০ লাখ বছর আগে এটির উৎপত্তি হয়। ১৯১১ সালে প্রথম্বার এই লাল রঙের রক্তের মতো পানির দ্বারার নামকরণ করা হয় ব্লাড ফলস। পরে, এই লাল রঙের রক্তের মতো পানির রহস্য উন্মেচন হয়। বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে দেখেছেন যে, মূলত অতিরিক্ত লবনাক্ত পানি আর খনিজ লোহার মিশ্রন বাতাসের সাথে বিক্রিয়া করে এই লাল রঙের পানি প্রবাহিত করে। আলাস্কা ফেয়ারব্যাংক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের নেতৃত্বে একটি নতুন গবেষণা দল আবিষ্কার করেছে যে প্রায় ১৫ লক্ষ বছর ধরে এ পানি প্রবাহিত হচ্ছে। যেটি সত্যিই বিস্ময়কর।

বিরুপ প্রকৃতিতেও প্রানী কূলের অস্তিত্ব টিকে থাকা বাস্তুসংস্থান এর শক্তিশালী এক প্রমান হচ্ছে ব্লাড ফলস। কিন্তু অনেক যুগ ধরে ব্লাড ফলস মানুষের মনে নানা রহস্যের খোরাক যুগিয়েছিলো! এখনো এটি একটি প্রকৃতির বিস্ময়। এন্টারটিকার শত শত রহস্যের মাঝে এটি অন্যতম এক রহস্য।

Digbijoy
Hey I am digbijoy, I am a photographer, kind of graphic designer and take interest in reading books and writing, Also a part of a educational platform named Lipikoron. ❤

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here