সাদা ঘোড়ার পিঠে

একটা ছোট বেলার গল্প বলি। অনেক ছোট বেলার গল্প। গল্পটাও খুব ছোট। আমার আম্মু প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। সেইবার আম্মুর স্কুল থেকে বনভোজন এর জন্য গিয়েছিলাম রাজশাহী। এবার বিশ্ববিদ্যালয় ঘুরে ফিরে গিয়েলাম জিয়া পার্ক এ। খুব সুন্দর জায়গা। তো গল্পটা যেমন ছোট আবার ইনটারেস্টিং ও না। তবে আমার কাছে সেটা হইতো ভয়াবহ।

সব পার্কে চড়ার জন্য যন্ত্র চালিত ঘোড়া থাকে। আমার ছিলো ঘোড়ায় চড়ার খুব সখ। আমি ছোট বেলায় অনেক কাদতাম একটা ঘোড়া কেনার জন্য। কিন্তু আমার কোনো সখই সেইভাবে পুরন হয় নি। তো পার্কের ঐ ঘোড়ায় চড়লাম। ঘোড়া ঘুরলো, খুব মজা লাগলো। এবার আসি শেষ ঘটনাই। ঐ ঘোড়ায় দুই তিনবার চড়ার পর আম্মু আর চড়াবে না। এবার আরো অন্যসব রাইড এ চড়বে। আমি ঘোড়াতেই চড়বো। পার্কের কোনো প্রান্তে এক যায়গায় একটা গোল ছাদ দেওয়া, তার নিচে আমি দেখতে পাই একটা ছোট ঘোড়া। স্প্রিং দেওয়া ঘোড়া। তবে ছোট। আমিও খুব ছোটই ছিলাম। এবার আমি চড়ে পড়লাম ঐ ঘোড়ার ওপর। চলছি টগবগ টগবগ। কিন্তু আসলে শব্দ হচ্ছিল ক্যাচ ম্যাচ, ক্যাচর-ম্যাচর। মনে হয় অনেক আগের ছিলো। তখন আর ব্যবহার হয় না। আশেপাশেও আর কিছুই ছিল না। আমি একায় চলছি টগবগ টগবগ। কখন সূর্য ডুবে গেছে তার খেয়াল নেই। এদিকে আমি জানিও না, বাড়ি ফেরার সময় হইছে। বাস ছাড়বে। আমার আম্মুর ও পাগল হওয়ার অবস্থা। তারপর স্কুলের ছেলেরা সবাই মিলে অনেক খুঁজে আমাকে ঘোড়ার ওপর পেয়েছিলো। এখন শুধু এইটাই ভাবি ঘোড়াটা যদি আসল হতো, তাহলে আমাকে তো আর খুজেই পেত না। আমি জানিনা কত তেপান্তরে মাঠ পেরিয়ে জাইতাম। আম্মু কি করতো। আর আমিই একা একা কি করতাম? নিজে কি খেতাম? আর ঘোড়ার খাবার এর জন্য ঘাস কাটতোই বা কে?

আজফার মুস্তাফিজ

3 COMMENTS

  1. ভাই, পোস্ট বড় করার চেষ্টা করবেন। এরপর ২৫০ শব্দের নিচে পোস্ট করলে সেটার Approve করা হবেনা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here