পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে গড়ে উঠা প্রায় বিশ্ব সভ্যতার উত্থান – পতন হয়েছে ৫০০০ থেকে ৬০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দের মধ্যে।।
প্রাচীনতম সভ্যতাগুলো — মেসোপটেমিয়া সভ্যতা, মিসরীয় সভ্যতা, সিন্ধু সভ্যতা, ফিনিশীয় সভ্যতা, গ্রিক সভ্যতা, হিব্রু সভ্যতা, রোমান সভ্যতা, ইনকা সভ্যতা, পারস্য সভ্যতা, হিট্রাইট সভ্যতা, চৈনিক সভ্যতা, ইউজিয়ান সভ্যতা, হেলেনিস্টিক সভ্যতা, ইসলামী সভ্যতা।

মেসোপটেমীয় সভ্যতা

🔹মেসোপটেমীয় সভ্যতা গড়ে উঠেছিল— ট্রাইগ্রিস ও ইউফ্রেটিস নদীর তীরে।
🔹মেসোপটেমিয়া সভ্যতার বেশিরভাগ এলাকা বর্তমানে অবস্থিত — ইরাকে।
🔹ব্যাবিলনের ঝুলন্ত উদ্যান অবস্থিত — ইরাকে।
🔹ব্যাবিলনের ঝুলন্ত উদ্যান গড়ে তুলেছিল — নেবুচাঁদ নেজার।
🔹বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন সভ্যতা গড়ে উঠেছিল — মেসোপটেমিয়ায়।
🔹বিশ্বের প্রাচীন সভ্যতার দেশ — মেসোপটেমিয়া।
🔹সুমেরীয় সভ্যতা গড়ে উঠেছিল — মেসোপটেমিয়ায়।
🔹সুমেরীয় সভ্যতায় প্রথম ব্যবহার শুরু হয় — চাকার।
🔹ইতিহাসের প্রথম লিখিত আইন প্রণেতা ব্যাবিলনের — হাম্বুরাবি।
🔹আসিরীয়রা প্রথম বৃত্তকে ভাগ করে — ৩৬০° কোণে।
🔹ক্যালডীয়রা প্রথম সপ্তাহকে বিভক্ত করেন — ৭ দিনে।
🔹ক্যালডীয় সভ্যতায় প্রতিদিনকে বিভক্ত করা হয় — ১২ জোড়া ঘন্টায়।

মিশরীয় সভ্যতা

🔹বাইজেনটাইন সাম্রাজ্যের রাজধানী ছিল — কনস্টান্টিনোপল
🔹প্রাচীন মিশরীয় সভ্যতা গড়ে উঠেছিল — নীলনদের তীরে।
🔹১২ মাসে বছর, ৩০ দিনে মাস এই গণনারীতি যাদের দ্বারা সূচিত — মিশরীয়দের দ্বারা।
🔹ক্লিওপেট্রা ছিলেন — মিশরের রানী।
🔹প্রাচীন মিশরীয়রা তাদের ভাব প্রকাশ করতো — হায়ারোগ্লিফিক বর্ণ দিয়ে।
🔹পৃথিবীর সবচেয়ে পুরাতন কীতির্স্তম্ভ — পিরামিড।

ফিনিশীয় সভ্যতা

🔹সভ্যতার ইতিহাসে ফিনিশীয়দের সবচেয়ে বড় অবদান — বর্ণমালা উদ্ভাবন।

গ্রিক সভ্যতা

🔹এরিস্টটল, প্লেটো, সেক্রেটিস ছিলেন — গ্রিক দার্শনিক।
🔹গ্রিক সভ্যতার সাথে জড়িত — হেলেনিক ও হেলেনিস্টিক সাংস্কৃতির নাম।
🔹গ্রিক মহাকবি হোমার হাজার হাজার বছরের পুরনো কাহিনী নিয়ে রচনা করেন — মহাকাব্য ‘ইলিয়ড’ আর ‘ওডিসি’।

হিব্রু সভ্যতা

🔹হিব্রু সভ্যতা গড়ে উঠছিল — প্যালেস্টাইনে
🔹বর্তমানে ইসরাইলের অধিবাসীরা — হিব্রুদের বংশধর।

রোমান সভ্যতা

🔹রোমান সম্রাট ছিলেন — জুলিয়াস সিজার।
🔹এলাম,দেখলাম জয় করলাম কথাটি বলেছেন — জুলিয়াস সিজার।
🔹নদী মাতৃক সভ্যতা নয় — রোমান

ইনকা সভ্যতা

🔹ইনকা সভ্যতার ব্যাপ্তিকাল ছিল — ১৪৩৮-১৫৩৩ খ্রিস্টাব্দ।
🔹ইনকা সভ্যতার ধ্বংসাবশেষ পাওয়া গেছে — পেরুতে
🔹মাচুপিচু হলো — ইনকা সভ্যতার নিদর্শন।

পারস্য সভ্যতা

🔹যে দেশটি প্রাচীনকালে পারস্য নামে পরিচিত ছিল — ইরান।
🔹পারস্যের ইতিহাসে সবচেয়ে সফল শাসক ছিলেন — দারিয়ুস।
🔹পারস্য সভ্যতার অপর নাম — একমেনিড সভ্যতা।
🔹পারসিক দিনপঞ্জি তৈরি করেন — দারিয়ুস। 🔹পারস্যরা ‘আহুরামাজদা’ বলে — সর্বশক্তিমান প্রভুকে।

হিট্রাইট সভ্যতা

🔹লৌহ ব্যবহার প্রথম শুরু করে যে সভ্যতার লোকেরা — হিট্রাইট।
🔹এশিয়া মাইনরে লৌহ যুগের সূচনা হয় — খ্রিষ্টপূর্ব ১২০০ অব্দে।
🔹হিট্রাইটদের ধর্মে প্রভাব স্পষ্ট ছিল — হুরিয়ানদের।

চৈনিক সভ্যতা

🔹চীনে নগর সভ্যতা গড়ে উঠেছিল — প্রায় চার হাজার বছর আগে।
🔹প্রাচীন চীন সভ্যতা গড়ে উঠেছিল — হোয়াংহো, ইয়াংসিকিয়াং এবং দক্ষিণ চীনে। 🔹কুনফুসিয়াসের দর্শন ধর্মে পরিণত হয় — খ্রিষ্টপূর্ব ২০৬ অব্দে।
🔹চীনা জনগোষ্ঠী মূলত যে বংশোদ্ভদত — মঙ্গোলীয়।
🔹ঘুড়ির জন্ম হয় — প্রাচীন চীনে।

ইউজিয়ান সভ্যতা

🔹ইউজিয়ান সভ্যতা গড়ে উঠেছিল — ইউজিয়ান সাগরের তীরবর্তী পূর্ব বলকান অঞ্চল নিয়ে।
🔹ইউজিয়ান সভ্যতার বিকাশ হয় — খ্রিষ্টপূর্ব চার হাজার অব্দে।
🔹ইউজিয়ান সভ্যতার তথ্য পাওয়া যায় — গ্রিক কবি হোমারের ইলিয়ড ও ওডিসি মহাকাব্য থেকে।
🔹ইউজিয়ান সভ্যতার পতন ঘটে — ১২০০ খ্রিষ্ট পূর্বাব্দে।

হেলেনিস্টিক সভ্যতা

🔹হেলেনিস্টিক সভ্যতা গড়ে উঠেছিল — মিসরের আলেকজান্দ্রিয়ায়।
🔹হেলেনিস্টিক সভ্যতার উৎপত্তি ও বিকাশে প্রধান ভূমিকা পালন করেন — ম্যাসিডোন অধিপতি আলেকজান্ডার দ্য গ্রেট।
🔹হেলেনিস্টিক সভ্যতা যে যে অঞ্চল নিয়ে বিস্তৃত ছিল — মিসর, এশিয়া মাইনর, গ্রিস ও ম্যাসিডোনসহ আলেকজান্দ্রিয়ার সমগ্র অঞ্চল।
🔹হেলেনিস্টিক সভ্যতার বিলুপ্তি ঘটে — খ্রিষ্টপূর্ব ৩১ অব্দে।

ইসলামী সভ্যতা

🔹ইসলামী সভ্যতার আবির্ভাব ঘটে — পৃথিবী সৃষ্টির শুরুতেই।
🔹আরব জাতির মূল আবাস ছিল — দক্ষিণ আরবের ইয়েমেন অঞ্চলে।
🔹আরব জাতির নামকরণ করা হয় — কাহতানের পত্র ইয়ারেবের নামানুসারে।
🔹আরব শব্দের উৎপত্তি হয় — আরাবাত থেকে।’আরাবাত’ শব্দের অর্থ — বৃক্ষলতাহীন মরুভূমি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here